পরপুরুষের সঙ্গে মেলামেশায় রাজি না হওয়ায় স্ত্রীর মাথা ন্যাড়া! - pratidinkhobor24.com

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 10 March 2020

পরপুরুষের সঙ্গে মেলামেশায় রাজি না হওয়ায় স্ত্রীর মাথা ন্যাড়া!




নিউজ ডেস্ক ঃ
অন্য পুরুষের সঙ্গে অসামাজিক কাজে রাজি না হওয়ায় আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিনে এক গৃহবধূকে বেঁধে মারধর শেষে ব্লেড দিয়ে মাথা ন্যাড়া করে দিয়েছে তার স্বামী। ন্যাড়া মাথা নিয়ে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হয়ে গ্রাম ছেড়ে অন্য গ্রামে আশ্রয় নিয়েছে নির্যাতিতা ওই গৃহবধূ।

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় বড়বাড়ী ইউনিয়নের মিস্ত্রিপাড়া গ্রামের এ ঘটনা। মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের ডাঙ্গীবাজার থেকে অভিযুক্ত স্বামী আমিরুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আমিরুল ইসলাম ওই এলাকার মৃত ফতে আলীর ছেলে। পেশায় কবিরাজ। তিনি এর আগেও একাধিক বিয়ে করেছেন। ডজন খানেক স্ত্রী তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে সংসার ছেড়েছেন।

নির্যাতিতা গৃহবধূর বাড়ি ঝিনাইদাহ জেলার মহেশপুর থানার কাঞ্চনপুর গ্রামে। তার বাবা ও মায়ের মৃত্যুর পর বিয়ে করে তিনি স্বামীর নিপীড়ন নির্যাতন সহ্য করে নীরবে সংসার করছিলেন। নির্যাতনের শিকার হয়ে তিনি উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের ফুলতলা গ্রামে ভাগিনা মিজানুর রহমানের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।

নির্যাতিতা গৃহবধূ জানান, দীর্ঘ এক যুগের বেশি সময় ধরে স্বামীর সংসার করছেন তিনি। অল্প ভুল পেলেই বাড়ির গেট বন্ধ করে লোহার রড দিয়ে মারধর করতো স্বামী আমিরুল ইসলাম। গত দুবছর ধরে পর পুরুষের সঙ্গে মেলামেশার জন্য প্রস্তাব দিচ্ছিল তার স্বামী আমিরুল। রাজি না হওয়ার অনেক মারপিটের শিকার হতে হয়েছে তাকে। সর্বশেষ গত শনিবার (৭ মার্চ) বালিয়াডাঙ্গী বাজারে এসে দুসম্পর্কের ভাগিনা মিজানুর রহমান ও স্থানীয়দের নিকট বিচার প্রার্থনা করেন ওই গৃহবধূ।

বিচার প্রার্থনা করায় ওই দিন বিকেল ৩টার দিকে স্বামীর আমিরুল রেগে গিয়ে বাজার থেকে টেনে হিচড়ে বাড়িতে নিয়ে কাপড় খুলে মারধর করে। একপর্যায়ে ব্লেড দিয়ে তার মাথার চুল কেটে দেয় এবং স্বামীর প্রস্রাব ও পায়খানা গ্লাসে করে খাওয়ায় বলে গৃহবধূ জানান।

স্বামীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে গৃহবধূ বলেন, স্বামীর সংসার আর করবো না। দুই মেয়ে ও এক ছেলেকে নিয়ে প্রয়োজনে ভিক্ষা করে খাবো।

আশ্রয়দাতা ভাগিনা মিজানুর রহমান জানান, ঘটনার শুনে আমি পুলিশের সহায়তায় নিয়ে রোববার (৮ মার্চ) গৃহবধূকে উদ্ধার করে বাড়িতে আশ্রয় দিয়েছি। আমি আশ্রয় দেওয়ার কারণে মোবাইলে আমাকেও হুমকি দিয়েছে গৃহবধূর স্বামী।

গৃহবধূর প্রতিবেশী ফরিদা বেগম ও নিহার বেগম জানান, আমিরুল তার স্ত্রীকে যখন মারপিট করে তখন সেখানে যাওয়ার পরিবেশ থাকে না। স্ত্রীর কাপড়-চোপড় খুলে গেট বন্ধ করে লোহার রড দিয়ে মারপিট করে। চুল কেটে দেয়ার সময় আমরা বাইরে থেকে দেখলেও ভেতরে যাওয়ার সাহস পাইনি।

প্রতিবেশী আমিরুল ইসলাম জানান, চুল কেটে দেয়ার পর তার স্বামী মোবাইলে স্ত্রীর ভিডিও স্বীকারোক্তি নিয়েছে। যদি কোনো সালিশ বৈঠক বসে সেখানে যেনো বলে, সে নিজেই নিজের চুল কেটেছে।

স্থানীয় সাংবাদিক হারুন অর রশিদ জানান, আমিরুলকে বেশ কয়েকবার আমি সতর্ক করেছি। আমিরুল শোনেনি। এমন জঘন্য কাজ সে করবে, এটা কল্পনা করিনি। তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়ার উচিত বলে মনে করেন তিনি।

বারিয়াডাঙ্গী থানার ওসি হাবিবুল হক প্রধান জানান, পুলিশ গৃহবধূকে উদ্ধার করে নিরাপদ আশ্রয়ে রেখেছে। দুদিন ধরে অভিযান চালিয়ে অবশেষে মঙ্গলবার দুুপুরে অভিযুক্ত স্বামীকে গ্রেফতার করেছে। এ ঘটনায় থানায় গৃহবধূ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ আইনানুগ প্রক্রিয়া শেষে আসামিকে কারাগারে পাঠাবে।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আসলাম জুয়েল বলেন, গৃহবধূর মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া একটি জঘন্য ঘটনা। জনপ্রতিনিধি হিসেবে গৃহবধূর পাশে আমি আছি, থাকবো। গৃহবধূ যে সামাজিকভাবে আগের মতো বসবাস করতে সেজন্য সব ধরনের ব্যবস্থা আমরা করবো।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা আবু বেলাল ছিদ্দিক জানান, গৃহবধূর নির্যাতনের কথা শুনেছি। আমরা ইতোমধ্যে মহিলার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। তাছাড়া পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে। আমাদের পক্ষ থেকে যতদূর সম্ভব আমরা ন্যায় বিচার পেতে গৃহবধূর সঙ্গে আছি।
সুত্র-মানবকণ্ঠ

No comments:

Post a comment

Post Bottom Ad

Pages