চৌহালীতে নৈশ প্রহরী দিয়ে চলছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান - pratidinkhobor24.com

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad




Sunday, 23 February 2020

চৌহালীতে নৈশ প্রহরী দিয়ে চলছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান


মোঃ ইমরান হোসেন (আপন) 
 চৌহালী(সিরাজগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম চলছে নৈশ প্রহরী দিয়ে। উপজেলার উমারপুর ইউনিয়নে ২৪নং শৈলজানা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩ জন শিক্ষক কর্মরত থাকলেও কর্মস্থলে কর্মরত না থাকায় নৈশ প্রহরি দিয়ে  চলছে পাঠদান।
শিক্ষাই জাতীর মেরুদন্ড, আর এ মেরুদন্ডের পরিচালিত দপ্তর হচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। তাদের জোরালো ভুমিকা না থাকায় শুন্য পদের কবলে পরে জরজরিত প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো। শিক্ষা বিভাগের উপজেলা পর্যায়ে সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ শিক্ষা অঙ্গন এটি, শুন্য পদগুলো নিরাশনের কোন লক্ষন নেই। চৌহালীতে স্কুল আছে শিক্ষক নেই এমন দৃশ্য উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। নজরদারি করার জন্য কোন ক্লাষ্টার অফিসার দেখেও না দেখার ভান করে চলেছে।
পড়ালেখার লক্ষমাত্রা অর্জিত না হওয়ায় আশংকা দেখা দেওয়ায় ঝরে পড়ছে শিশু শিক্ষার্থীরা। স্কুল ও পাঠদান টিকিয়ে রাখতে নৈশ প্রহরী সুলতান ক্লাশ নিচ্ছে। ২৪নং শৈলজানা সপ্রাবি’র ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আঃ আলিম বলেন, আমার স্কুলে ২৫১জন শিক্ষার্থীর জন্য ৩জন শিক্ষক থাকলেও মন্ত্রনালয়ের ডেপুটেশনে জান্নতুল ফেরদাউজ, পিটিআইতে আছেন মেরাজুল ইসলাম। আমি সরকারের বিভিন্ন মিটিংসহ অফিসের কাজে ব্যস্ত থাকতে হয়, যার কারণে স্কুলে সময় কম কাটে। ৫টি ক্লাসের ছাত্র হাজিরা ও বিস্কুট বিতরণে সময় পার ফলে পাঠদান নিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে, ২৫১ জন শিক্ষার্থীর  জন্যে আমি একা।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ভারঃ) মনিরুজ্জামান খান জানান, এ দপ্তরে চলতি দায়িত্ব প্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার হিসেবে কাজ করছি এবং ২জন এটিও দিয়ে চলছে দপ্তরের কার্যক্রম। ১২৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৭শ’ শিক্ষক ও প্রায় ২৫ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। শিক্ষক সংকটে অনেক প্রতিষ্ঠান, শিক্ষক নিয়োগ না থাকায় স্কুলগুলো সচল করা সম্বাব হচ্ছে না।

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages