রামগঞ্জে সড়ক সংস্কারে অনিয়ম - pratidinkhobor24.com

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, 29 October 2019

রামগঞ্জে সড়ক সংস্কারে অনিয়ম

রামগঞ্জে সড়ক সংস্কারে  অনিয়ম ও  ২২ ফুট প্রশস্হ সড়ক কাজ হচ্ছে ১৮ ফুট
রামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ-
রামগঞ্জের সড়ক ও জনপথ বিভাগের হাজ্বীগঞ্জ - লক্ষ্মীপুর সড়কের রামগঞ্জের অংশ হিসেবে ফকির বাজার থেকে পান পাড়া সড়ক সংস্কারে কোন আইনে ২২ ফুট প্রশস্থ সড়কটি ৪ফুট কমিয়ে ১৮ ফুট করেন? স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ আর হতাসা বিরাজ করছে   
যেখানে সড়কটিতে এত বেশি  যান চলাচল করিতেছে প্রায় যানযট লেগেই থাকে সেখানে রামগঞ্জবাসী আশা করেছিল সড়কটি ৪ লেনে উন্নতি  হবে অথচয়  যা আশা করেছিল হচ্ছে তার উল্টো । 


সড়কের ফকির বাজার থেকে হাজ্বীগঞ্জ সড়ক প্রশস্থ ২২ফুটের বেশী মাঝখানে ফকির বাজার থেকে পানপাড়া সড়কটি পূর্বে সড়কটি ২২ ফুট থেকে সংকোচন করে ১৮ ফুট এবং পানপাড়া বাজার থেকে দালাল বাজার, মোল্যার হাট,হামছাদী হয়ে লক্ষ্মীপুর সড়কটি প্রশস্থ ২২ফুট।
সড়কের হাজ্বীগঞ্জ থেকে বেলচো পর্যন্ত চাঁদপুর জেলার হাজ্বীগঞ্জ - শাহরাস্তির অংশ  বেলচো থেকে ফকির বাজার পর্যন্ত ফরিদগঞ্জ উপজেলা অংশ, ফকির বাজার থেকে রামগঞ্জ হয়ে পানপাড়া পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার অংশ, পান পাড়া থেকে মীরগঞ্জ হয়ে দালাল বাজার লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার অংশ, দালাল বাজার থেকে  মোল্যার হাট হয়ে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার অংশ।


হাজ্বীগঞ্জ হতে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা পর্যন্ত ২টি জেলার ৫টি সংসদীয় আসনের অংশ হিসেবে এ সড়কটি বেশী কম রয়েছে। রামগঞ্জ অংশ ব্যতিত বাকী ৪টি সংসদীয় আসনের অংশে সড়কটি ২২ফুট প্রশস্থ। রামগঞ্জের সচেতন মহল সমীকরণ দেখিয়ে বলেন ডিজিটাল বাংলাদেশ নামে স্বীকৃতি প্রাপ্ত  বাংলাদেশ সরকারের সকল ক্ষেত্রে উন্নয়ন কর্মকান্ড বর্তমান পরিস্থিতি থেকে অগ্রগতি দিকে ধাবিত হচ্ছে।
এরই পরিপ্রেক্ষিতে রামগঞ্জ সড়ক বিভাগের পরিস্থিতি উল্টোদিকে যাচ্ছে। ২২ফুট সড়ক ভেকু দিয়ে তুলে তাহা ১৮ফুট করার বিষয়টি জনসাধারণ জানতে চায়।
এ বিষয় ব্যর্থতা কাহার? প্রতিবাদ কিংবা তদারকি করার অধিকার করার মানুষকি নেই? দায়িত্ব কাহার উপর! 
গত প্রায় ১৫ বছর আগে সড়কটি প্রশস্থ হয় ২২ফুট। তৎসময়ে সড়কে যানজট কম ছিল। বর্তমান সড়কটি এতোটাই যানজট বেড়েই চলছে স্থানীয়রা দাবী করে আসছে সড়কটি ৪লেনের। আর ওই দাবী উপেক্ষিত হয়ে বরং জনগণের দাবীকে পদতলে দিয়ে সড়কটি  ৪ ফুট সংকোচ করে এবং পাথরের চেয়ে বালি অনেক বেশী দেওয়া সড়ক নির্মানের আগেই বিভিন্ন স্হানে দেভে গিয়ে কাঁদামাক্ত হয়ে যানচলাচল দূঃবিসায় হয়ে পড়েছে। 
এব্যাপারে ঠিকাদার  ব্রাদার্স এনট্রাফাইজের মালিক জেলা যুবলীগ নেতা সফিকুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন বলেন,সাংবাদিকদের রাস্তায় কি কাজ সেটা সড়ক ও জনপথের লোকজন আছে তারা দেখবে। 
সড়ক ও জনপথের প্রকৌশলী কাউসার আহম্মেদ বলেন নিয়ম অনুযায়ী  কাজ হচ্ছে। 
এব্যাপারে স্হানীয় সংসদ আনোয়ার হোসেন খানকে বারং বার ফোন করেও তার সাথে কথা বলা যায় নাই।

No comments:

Post a comment

Post Bottom Ad

Pages